Featured Post Today
print this page
Latest Post

কম্পিউটারের মিসিং হার্ডওয়্যার ড্রাইভার ইন্টারনেটে খুঁজবেন যেভাবে

কম্পিউটারের কাজ করতে গিয়ে অনেক সময় অনেক সমস্যায় পরতে হয়। ধরুন গান শুনতে চান, গান শুনতে গেলেই আপনার সামনে হাজির হয় অডিও ড্রাইভার মেসিং। বা PC তে ল্যান্ড করতে চান ল্যান্ড ড্রাইভার মেসিং, এ রকম হাজারও এঁরর ( error ) হয়তো দেখতে পান । হয়তোবা অনেক সময় দেখা যায় কম্পিউটারে কোন একটি হার্ডওয়্যারের ড্রাইভার খুঁজে পাচ্ছেন না বা ড্রাইভারটি হয়তো কোনভাবে কম্পিউটার বা ল্যাপটপ থেকে ডিলিট হয়ে গেছে। ইন্টারনেট থেকে আপনি খুব সহজেই খুঁজে সেটি বের করতে পারেন, আপনার প্রয়োজনীয় হার্ডওয়্যার ড্রাইভারটি। [ Slow কম্পিউটার নিমিষে সুপার ফাস্ট করে নিন সফটওয়্যার ছারা ১ মিনিটে ] আসুন দেখা যাক কিভাবে-
মিসিং হার্ডওয়্যার ড্রাইভার ইন্টারনেটে খুঁজবেন যেভাবে

মিসিং হার্ডওয়্যার ড্রাইভার ইন্টারনেটে খুঁজবেন যেভাবে

  • প্রথমে Start >Control panel >system অনুসরন করুন ( System অপশনটি দেখতে না পেলে বাম দিকের টাস্ক থেকে Switch to category view অপশনে ক্লিক করুন )
  • System উইন্ডো থেকে Hardware ট্যাব সিলেক্ট করুন। এবার Device Manager সিলেক্ট করুন। এখানে আপনার PC এর সাথে সংযুক্ত হার্ডওয়্যারগুলোর একটি তালিকা দেখতে পারবেন। যেসব হার্ডওয়্যার ড্রাইভারের অভাবে ঠিকমতো ইনস্টল করা হয়নি সেগুলোর পাশে ক্যাটকেটে হ্লুদ রঙের প্রশ্নবোধক (?) চিহ্ন থাকবে। 
এটিও পড়ুন - কীভাবে অটোরান ভাইরাস কম্পিউটার থেকে ডিলিট করবেন - Autorun Virus Remover
  • হলুদ প্রশ্নবোধক চিহ্নিত হার্ডওয়্যারটি সিলেক্ট করে রাইট বাটন ক্লিক করে Properties ওপেন করুন। Properties থেকে Details ট্যাবটি সিলেক্ট করুন।
  • এবার ড্রপ ডাউন মেনু থেকে Hardware ids সিলেক্ট করুন।
  • এবার ভেল্যু লিস্ট থেকে সর্বশেষ ভ্যালু ctrl+c চেপে কপি করুন। এবার তা আপনার পছন্দের সার্চ ইঞ্জিনের সার্চ বক্সে পেষ্ট করে দিয়ে অনুসন্ধান করুন…দেখবেন মুহূর্তের মধ্যেই খুঁজে পাবেন আপনার প্রয়োজনীয় হার্ডওয়্যার ড্রাইভারটি! 
ব্যাস! এবার আপনার কম্পিউটারে বা ল্যাপটপে ডাউনলোড করে নিন আপনার মিসিং হার্ডওয়্যার ড্রাইভারটি। 
0 comments

কম্পিউটার চালু না হলে কি করবেন ? জেনে নিন !

কম্পিউটার নিয়ে আমাদের অনেক সময় অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। বিশেষ করে আপনারা যারা নতুন নতুন কম্পিউটার কেনেছেন। মাঝে মাঝে কম্পিউটার চালু না একটি অতি পরিচিত সমস্যা হিসেবেই চিহ্নিত করতে হয়। নিয়মিত কম্পিউটার চালু হয় না এমনটা বললে মনে হয় ভুল বলা হবে না। নতুন ব্যবহারকারীদের কাছে এই সমস্যার একটাই সমাধান। তা হচ্ছে বিক্রেতার শরণাপন্ন হয়ে অযথা পয়সা খরচ এবং সময় অপচয় করা। নিচের কথাগুলো শুনুন মনোযোগ দিয়ে। আশা করি আপনার চেষ্টা বিফলে যাবে না। [ Slow কম্পিউটার নিমিষে সুপার ফাস্ট করে নিন সফটওয়্যার ছারা ১ মিনিটে ]

কম্পিউটার চালু না হলে কি করবেন ? জেনে নিন !

PC চালু না হলে যা করবেন- 

  •  পাওয়ার সুইচ (Power Switch) অন করার পর সিস্টেমের ইন্টারনাল স্পিকার কয়টা আওয়াজ করলো খেয়াল করুন। যদি বীপ সংখ্যা এক হয় তার মানে কম্পিউটার ডিসপ্লে আউটপুট পাচ্ছে না। অথবা কীবোর্ড মাদারবোর্ডের সাথে ঠিকমতো সংযুক্ত না হলেও এমনটা হতে পারে।
  • যদি একটি বড় বীপের পর দুটি ছোটো বীপ হয় তারমানে র‌্যাম পাচ্ছে না আপনার মাদারবোর্ড। র‌্যাম পরিবর্তন না স্লট পরিবর্তন করে দেখুন।
  • যদি একটি বড় বীপের পর তিনটি ছোট বীপ হয় তাহলে বুঝবেন নিশ্চিতভাবেই ডিসপ্লে বা গ্রাফিক্স আউটপুটের সমস্যা।
  • আর যদি একটা বড় বীপ তারপর চারটা ছোট বীপ হয় তারমানে আপনার মাদারবোর্ড বা গুরুত্বপূর্ণ কোন হার্ডওয়ার নষ্ট হয়ে গিয়েছে বা ঠিকমতো কাজ করছে না।
এটিও পড়ুন - PC থেকে অপ্রয়োজনীয় ফাইল, DOCUMENT মুছে ফেলুন ১ মিনিটে

  • তবে এর জন্য আপনার পিসিতে ইন্টারনাল স্পীকার কিন্তু থাকতে হবে। অনেক মাদারবোর্ডে ইন্টারনাল স্পীকার বিল্ট-ইন থাকে।অন্যগুলাতে আলাদা লাগাবে হয়। সাধারনত PC কেনার সময় বিক্রেতাই এটি দিয়ে দেয় তবে অনেকসময় ভুলে তা ঠিকমতো লাগানো নাও থাকতে পারে।সেক্ষেত্রে আপনার মাদারবোর্ডের বক্সে দেখুন স্পীকার পান কিনা।নইলে সময় করে বিক্রেতার কাছ থেকে নিয়ে আসুন।বুঝতেই পারছেন কেন আমি এটাকে এতো গুরুত্ব দিচ্ছি।
  • মনিটরের (Monitor) দিকে তাকান। এটি কি স্লীপ মোডে আছে ? অর্থাৎ এর লেড লাইট কি জ্বলছে নিভছে কিনা খেয়াল করুন। যদি তা না হয় অর্থাৎ লেড লাইট জ্বলেই থাকে এবং মনিটরে কিছু না কিছু দেখা যায় তাহলে আপনাকে অভিনন্দন। আপনার মাদারবোর্ড ও গ্রাফিক্স কার্ড (Mother Board & Graphic Card ) ঠিক আছে।সমস্যাটা ছোটোখাটো।নো টেনশন!
  • যদি পাওয়ার অন করাই সম্ভব না হয় তাহলে কেসিং খুলে দেখুন নিঃসন্দেহে আপনার পাওয়ার সাপ্লাইয়ে সমস্যা। খোঁজার চেষ্টা করুন সমস্যাটা কোথায়।
  • এবারে ধরুন মাদারবোর্ডের পাওয়ার লেড জ্বলছে কিন্তু কেসিংয়ের পাওয়ার বাটন চাপলেও পিসি রেসপন্স করছে না তখন বুঝতে হবে কেসিংয়ের পাওয়ার সাপ্লাইয়ে কোনো সমস্যা হবার কারণে এটি পর্যাপ্ত ভোল্টেজ আউটপুট দিতে পারছে না। এক্ষেত্রে সম্ভব হলে অন্য পাওয়ার সাপ্লাই লাগিয়ে চেষ্টা করে দেখুন।
  • এবারেও কাজ হয়নি ? হতে পারে আপনার পাওয়ার সুইচেই সমস্যা। অভিজ্ঞ কাজ জানা ব্যবহারকারীরা সম্ভব হলে মাদারবোর্ডের ম্যানুয়াল দেখে মাদারবোর্ডের পাওয়ার বাটন পিন দুইটি বের করে তা কোনোভাবে কন্টাক্ট করে দেখতে পারেন কাজ হয় কিনা। তবে অনভিজ্ঞরা এই কাজটি না করতেযাওয়াটাই ভালো।
  • পাওয়ার সংক্রান্ত সমস্যার আশাকরি সমাধান হলো। এবারও কম্পিউটার চালু হচ্ছে না ? তাহলে বুঝতে হবে র‌্যামের সমস্যা। র‌্যামের স্লট পরিবর্তন করে নতুবা অন্য র‌্যাম লাগিয়ে দেখুন।
  • কম্পিউটার বুট (Computer Boot ) হলো ঠিকঠাক কিন্তু উইন্ডোজ লোডিং-এর আগেই আটকে গেছে ? তখন বুঝতে হবে আপনার হার্ডডিস্কের সমস্যা। হার্ডডিস্কের পাওয়ার ও ডাটা ক্যাবলের কানেকশন চেক করুন। সম্ভব হবে মাদারবোর্ডের যে কানেক্টরে ক্যাবলটি লাগানো তা পরিবর্তন করে দেখুন। এছাড়া এমনটি কি হচ্ছে কম্পিউটার ঠিকমতো চালু হচ্ছে হয়তো অপারেটিং সিস্টেমও লোড হচ্ছে তারপর ধপ করে PC বন্ধ হয়ে রিস্টার্ট করছে। এটি সম্ভবত প্রসেসরের কুলিং ফ্যান বা হিটসিংক ও প্রসেসরের কানেকশনের দুর্বলতার কারণে হচ্ছে। চেক করে দেখুন ফ্যান ঠিকমতো ঘুরছে কি-না বা ফ্যানসহ সবকিছু ঠিকমতো টাইট আছে কিনা। পারলে কুলিং ফ্যানসহ হিটসিংক খুলে আবারও লাগান। কুলিং ফ্যান দুইপাশে একসাথে চাপ দিয়ে খুলতে হয়।
  • আর হঠাৎ করে বন্ধ না হলে মানে একটু সময় নিয়ে সংকেত দিয়ে বন্ধ হওয়া মানে ভাইরাসের আক্রমণের শিকার আপনি।
  • হঠাৎ বলতে আমি এটা বুঝাচ্ছি যে কম্পিউটার চলার সময় পাওয়ার চলে গেলে যেভাবে বন্ধ হয় সেরকম ঘটনা।
  • এছাড়াও কোনো না কোনো ক্যাবল লুজ/ নষ্ট হয়ে যাবার কারণেও কম্পিউটার চালু হওয়া বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এই ব্যাপারটিও খেয়াল রাখবেন।
 কম্পিউটার সম্পর্কিত যেকোন সমস্যার জন্য কমেন্ট করুন। ধন্যবাদ।
0 comments

Excel এর ম্যাথ সম্পর্কিত কিছু গুরুত্ব পূর্ণ ফাংশন

Excel শিক্ষার আসর পার্ট II:  Excel এর অত্যন্ত খুব দরকারি ১০ টি মেথড পর্বে এক্সেল এর SUM ( যোগফল ), বিয়োগফল, গুনফল, সর্বনিম্ন, সর্বাধিক, If, গড়ফল ইত্যাদি ইত্যাদি নির্ণয়ের ফর্মুলা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছিল। চাইলে এখানে ক্লিক করে এই মেথডগুলি শিখে নিত পারেন। এই পর্বে আরও কিছু মজার মজার ফাংশন যেমন- গসাগু নির্ণয়, লসাগু নির্ণয়, বর্গমূল নির্ণয়, দিন-তারিখ ইত্যাদি ইত্যাদি নির্ণয়ের ফর্মুলা শেয়ার করা হল যা আপনার বিভিন্ন কাজে আসবে বলে আমি মনে করি। [বয়স বের করার সহজ মেথড জেনে নিন EXCEL এর যাদু ]
Excel এর সুত্র গুলি নিম্ন রুপ-

গসাগু নির্ণয় করতে চাইলে?
দুটি, তিনটি কিংবা একাধিক সংখ্যার গসাগু নির্ণয় করতে চাইলে GCD ফাংশন ব্যবহার করে সহজে গসাগু বের করতে পারি।

Syntax:
=GCD(4,16,64)
উত্তর- 4

লসাগু নির্ণয় করতে চাইলে?
দুটি, তিনটি কিংবা একাধিক সংখ্যার লসাগু নির্ণয় করতে চাইলে LCM ফাংশন ব্যবহার করে সহজে লসাগু বের করতে পারি। 
Syntax: 
=LCM(24,36)
উত্তর - 72

বর্গমূল নির্ণয় করতে চাইলে?
কোন সংখ্যার বর্গমূল নির্ণয় করতে চাইলে SQRT ফর্মুলা ব্যবহার করে সহজে বর্গমূল নির্ণয় করতে পারি। কিন্তু Number এর মান অবশ্যই ধনাত্নক হতে হবে।

Syntax: 
=SQRT(81)
উত্তর - 9

POWER(ঘাত)

কোন সংখ্যার বর্গ বা ঘাত নির্ণয় করতে Power ফর্মুলা টি ব্যবহার করা হয়।
Syntax-
  • =POWER(5,2)
এখানে 5 হচ্ছে সংখ্যা এবং 2 হচ্ছে ঘাত। উক্ত সিনট্যাক্স টির উত্তর হবে 25.
Excel এর ম্যাথ সম্পর্কিত কিছু গুরুত্ব পূর্ণ ফাংশন

ভগ্নাংশ কে Round এ নির্ণয় করতে চাইলে?
ROUND আসন্ন মান অর্থাৎ মোটামুটি কাছি অংক দিয়ে প্রকাশ করা হয়। যেমন - ২.৫৬৮৫ সংখ্যাটিকে দুই দশমিক আসন্ন মান লিখতে বলা হলে ২.৫৭ লেখা হয়।
Syntax:  =ROUND(18.378,2)
উত্তর - 18.38


বর্তমান তারিখ সময় মাস, ও বছর বের করতে চাইলে?
আজকের দিন (বর্তমান সময়) দিন তারিখ সময় মাস ও বছর জানার জন্য NOW,Month(Now()) ও YEAR(Now()) ফর্মুলা ব্যবহার করে সহজে তা নির্ণয় করা যায়।
Syntax:
=NOW() 
শুধু মাস বেরক্রতে চাইলে?
=Month(Now())

শুধু বছর বের করতে চাইলে ?
=YEAR(Now())

কোন তারিখ কি বার জানতে চাইলে?
WEEK DAY("01/01/1990")
উত্তর- 6 (অর্থাৎ Friday)

কোন তারিখ কি বার জানার জন্য?
=TEXT("01/01/1990",ddd)
উত্তর - Friday

কম্পিউটারের এ রকম হাজারও প্রশ্নের উত্তর পেতে আগমনী বার্তা ভিজিট করতে পারেন।  এর পরের পোষ্টে Excel এর FV, RATE, PV, NPV, SLN, ABS, ATN, INT, LN, SIN, PI, DATEIF, COUNTIF, SUMIF ইত্যাদি ফর্মুলা নিয়ে আলোচনা করা হবে তক্ষণে সঙ্গে থাকুন। ধন্যবাদ।
0 comments

অ্যান্ড্রয়েড ফোন দিয়ে PC তে যেভাবে ইন্টারনেট চালাবেন

কম্পিউটার ও স্মার্ট ফোন দুটোই একই পয়সার এপিঠ ওপিঠ বলতে পারি। কেননা বর্তমানে অ্যান্ড্রয়েড ফোনের এত অ্যাপ বাজারে চলে আসছে যে প্রায় সকল কাজই অ্যান্ড্রয়েড হচ্ছে। কিন্তু অনেক সময় কিছু কিছু কাজের জন্য কিংবা দ্রুত কোন কাজ সেরে ফেলার জন্য কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহারের প্রয়োজন পরে। দেখা গেল সেসময় আপনার হাতে মডেম নেই তাই  বলে কি ইন্টারনেট ব্যবহার করবেন না। বাড়িতে কারো না কারো অ্যান্ড্রয়েড মোবাই তো রয়েছে। সেটা দিয়েই দিব্যি কম্পিউটার এ ইন্টারনেট চালাতে পারবেন একদম সফটওয়ার ছাড়া।
আবার অনেকে কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যাবহার করি, কেউ ব্লুটুথ দিয়ে কেউ আবার মডেম দিয়ে, কিন্তু আজ আমি আপনাদের দেখাবে কিভাবে ব্লুটুথ বা মডেম ছাড়াই কিভাবে অ্যান্ড্রয়েড ফোন দিয়ে কম্পিউটারে ইন্টারনেট চালানো যায়
অ্যান্ড্রয়েড ফোন দিয়ে PC তে যেভাবে ইন্টারনেট

অ্যান্ড্রয়েড ফোন দিয়ে PC তে যেভাবে ইন্টারনেট চালাবেন?

  • প্রথমে কেবল দিয়ে অ্যান্ড্রয়েড ফোন কে কম্পিউটার এর সাথে ডাটা ক্যাবলের মাধ্যমে সংযুক্ত করে নিন।
  • এরপর আপনার মোবাইলের স্ক্রিনে USB connected এর একটি Windows আসবে সেখানে Turn on USB Storage অপশানটি দেখতে পাবেন । এখানে ক্লিক করবেন না । Back বাটনে ক্লিক করুন । 
  • এরপর Settings যান , এবং More এ ক্লিক করুন এরপর Tethering & Portable hotspot অপশনে ক্লিক করুন , ও USB Tethering ( Settings>More>Tethering & Portable hotspot>USB Tethering ) এর ডাদিকের বক্সটিতে টিক চিহ্ন দিন । আপনার কম্পিউটরের System Tray তে Network এর একটি আইকন আছে , সেটি নেটওয়ার্ক এর আওতায় আসলে Cross চিহ্নটি উঠে যাবে । প্রয়োজনে ১ মিনিট অপেক্ষা করুন ।আর USB connected করার জন্য CPU এর পিছনের Port গুলো ব্যবহার করুন ।
ব্যাস হয়ে গেল কম্পিউটারে ইন্টারনেট সংযোগ, এবার ইচ্ছামত ইন্টারনেট ব্যবহার করুন কম্পিউটারে।

অন্যন্য মোবাইলে যা করতে হতে পারে :

Media Device (MTP) এখানে টিক চিহ্ন দিন> Settings>>Developer options> USB Debugging এর ফাঁকা বক্সে টিক চিহ্ন দিয়ে সিলেক্ট করুন> Settings>Wireless & Networks>Tethering & portable hotspot গিয়ে USB tethering এর ডাদিকের বক্সটিতে টিক চিহ্ন দিন।
Media Device (MTP)=এখানে টিক চিহ্ন দিলে কম্পিউটার থেকে মোবাইলে থাকা Software Install, Copy cut ইত্যাদি করা যাবে ।
USB Storage= Computer এর সাথে Phone Memory এবং SD Card সংযুক্ত হবে ।
(collected)

কোন সমস্যা হলে কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করুন কিংবা সমস্যা ও সমাধান পেজে আপনার মন্তব্য জানান।
0 comments

২০১৭ উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার রুটিন, WBCHSE Exam Schedule 2017

আসন্ন ২০১৭ সালের উচ্চ মাধ্যমিক ছাত্র- ছাত্রী বন্ধুদের জন্য আজকের এই পোস্ট। তোমরা যারা এবার উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা বসার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছ তাদের জন্য অর্থাৎ পশ্চিমবঙ্গ শিক্ষা পর্ষদ ( West Bengal Council of Higher Secondary Education board - WBCHSE )) বোর্ডের 2017 সালের মাধ্যমিক পরীক্ষার রুটিন শেয়ার করছি। তোমরা উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার জন্য ভালো মতো প্রস্তুতি নাও এবং গর্বের সহিত ভালো রেজাল্ট করো এই কামনাই করি। তোমাদের কোন প্রশ্ন ও মন্তব্য থাকলে ফেসবুক ফ্যান পেজ কিংবা অনলাইনে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারো।  নিম্নে ২০১৭ সালের মাধ্যমিক পরীক্ষার রুটিন তালিকা তূলে ধড়া হল প্রয়োজনে pdf ফাইল ডাউনলোড করে নিতে পারো। 
২০১৭ উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার রুটিন, WBCHSE Exam Schedule 2017

West Bengal Council of Higher Secondary Education board (WBCHSE) Ecamination program 2017, Schedule of Madhyamik Pariksha (S.E.) 2017, Routine of Madhyamik Examination 2017 , Madhyamik Pariksha Time Table 2017 ,West Bengal Board of Secondary Education, MP Exam Time Table (WB) 2017 ,MP Exam Routine 2017, MP time table 2017, 
নিম্নে পরীক্ষার সময় সূচি- (New Syllabus : From 10 am to 1.15 P.M)
Date
Day
Subject
15.03.2017
Wednesday
Bengali (A), English (A), Hindi (A), Nepali (A), Urdu, Santhali, Odia, Telegu, Gujrati, Punjabi.
17.03.2017
Friday
English (B), Bengali (B), Hindi (B), Nepali (B), Alternative English.
18.03.2017
Saturday
Computer Science, Modern Computer Application, Environmental Studies, Health & Physical Education, Music, Visual Arts.
20.03.2017
Monday
Mathematics, Psychology, Anthropology, Agronomy, History.

22.03.2017
Wednesday
Physics, Nutrition, Education, Accountancy.

24.03.2017
Friday
Chemistry, Economics, Journalism & Mass Communication, Sanskrit, Persian, Arabic, French.
25.03.2017
Saturday
Statistics, Geography, Costing and Taxation, Home Management and Family Resource Management.
27.03.2017
Monday
Biological Science, Business Studies, Political Science.
28.03.2017
Tuesday
Automobile, Organised Retailing, Security, IT and ITES,
29.03.2017
Wednesday
Commercial Law and Preliminaries of Auditing, Philosophy, Sociology. 

বিস্তারিত জানার জন্য অফিসিয়াল ওয়েব সাইট www.wbchse.nic.in ভিজিট করুন কিংবা  এখানে করেও ভিজিট করতে পারেন

মাধ্যমিক পরীক্ষার রুটিন ডাউনলোড করার জন্য এখানে ক্লিক করুন অথবা নিম্ন প্রদত্ত লিঙ্ক থেকে ডাউনলোড করে নিন।
0 comments

জিমেল একাউন্ট সুরক্ষা করবেন যেভাবে ! হ্যাকিং থেকে Gmail Account সুরক্ষা করতে চান?

Gmail এ কমবেশি সকলেরই ইমেল অ্যাকাউন্ট আছে। কিন্তু কতজন আছেন যে নিজের জিমেল অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত রেখেছেন। প্রতিনিয়ত হাজার হাজার ইমেল অ্যাকাউন্ট হ্যাক হচ্ছে সেটা কি আপনার মাথায় আছে। যদি আপনি একটু সতর্ক হন তাহলে আপনি আপনার অ্যাকাউন্ট কে সুরক্ষিত রাখুন। অনেকই আছেন যারা Google Drive, Google Photos, Blogger , Youtube ইত্যাদি পরিষেবা গুলি Google এর ব্যবহার করেন অথচ আপনার অ্যাকাউন্টটি সুরক্ষিত নয়। যেকোন মহুরতে আপনার পছন্দের ব্লগ (Blog) কিংবা Youtube Channel হ্যাকারা হাতিয়ে নিতে পারে। নিম্নে আলোচনা করা হল কিভাবে জিমেল একাউন্ট সুরক্ষা করবেন ?

কিভাবে জিমেল অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত করবেন?

  • টু স্টেপ (2 step verification) ভেরিফিকেশন।
  • গুগল স্প্যাম ফোল্ডার (Spam Folder ) থেকে দূরে থাকুন।
  • কাউকে গুগল অ্যাকাউন্ট পাসওয়ার্ড ভুলেও দেবেন না।
  • নিজের মোবাইল নাম্বার সর্বদা উপদেট রাখুন।
  • রিকভারি ইমেল এড্রেস অবশ্যই রাখুন।
  • জিমেল খোলার সময় অবশ্যই ইউআর এলের আগে http:// বা https://  ব্যবহার করুন।
  • পাসওয়ার্ড বড় ও জটিল দেওয়াই ভালো।
[ এর জন্য পাসওয়ার্ড জেনারেটর ব্যবহার করতে পারেন। পাসওয়ার্ড জেনারেট করার জন্য এখানে ক্লিক করুন। ]

কিভাবে স্টেপ টু ভেরিফিকেশন করবেন?

  • প্রথমে ইমেল ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করুন
  • এর পর MY Account এ ক্লিক করুন । নিচের ছবিটি লক্ষ করুন।
জিমেল অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত
  • এরপর Device activity & notifications অপশনে ক্লিক করুন। অসুবিধা হলে নিচের ছবিটি লক্ষ করুন।
জিমেল অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত
  • এরপর নিচের ছবিটি মতো দেখতে পাবেন। এবং OFF বটামটিতে ক্লিক করুন।

জিমেল অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত

  • এরপর Get started অপশনে ক্লিক করুন।
জিমেল অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত


  • এরপর পুনরায় আপনার জিমেল Password দিয়ে লগইন করুন।
  • এরপর Text message কিংবা Phone Call যেমন একটি তে ক্লিক করুন। এবং Next অপশনে ক্লিক করুন।
  • এরপর আপনার ফোনে তৎক্ষণাৎ একটি Code আসবে। সেটি টাইপ করুন। এবং Next করুন। (যদি Text Message সিলেক্ট থাকে তবেই কোড আসবে )
  • এরপর Turn On এ ক্লিক করুন।
ব্যাস! আপনার কাজ শেষ , এর পর Gmail লগইন করতে গেলেই আপনার ফোনে একটি Code পাবেন, আর সে Code টি টাইপ না করা অবধি লগইন করতে পারবেন না। ভালো লাগলে শেয়ার করবেন।ধন্যবাদ।
0 comments

স্মার্ট ফোনে যে অ্যাপগুলি থাকা খুবই জরুরী - এনড্রয়েড ট্রিক্স

আট থেকে আশি কমবেশি সবার পকেটে এখন স্মার্ট ফোন ও ট্যাবলেট। টেকনোলোজির যুগে এনড্রয়েড ফোন এমন একটি মাধ্যম যা দিয়ে দারুন সব মজার মজার কাজ নিমিষে সেরে ফেলা যায় । এমন কিছু অ্যাপ আছে যেগুলো এনড্রয়েড মোবাইলে ইন্সটল থাকেই ফ্রী কল, চ্যাট, বিরক্তকর ফোন নাম্বার ব্লক,ফ্রি পরিবহন সম্পর্কিত তথ্য, ট্রেন সম্পর্কিত তথ্য,  ঘরে বসে কেনাকাটা, খাবার অর্ডার এমনকি ফটো এডিটিং কাজও সেরে ফেলা যায় স্মার্ট ফোনে, এছারাও অনেক কাজ করা যায় খুব সহজে। আজকে আমি কয়েকটি স্মার্ট ফোনের অ্যাপ নিয়ে আলোচনা করবো যেগুলো আপনার ফোনে থাকলে খুব সুবিধা হবে।
স্মার্ট ফোনে যে অ্যাপগুলি থাকা খুবই জরুরী - এনড্রয়েড ট্রিক্স

অ্যান্টিভাইরাস


সবার প্রথমে আমাদের যেটা মাথায় রাখা উচিৎ সেটা হল ফোনকে সুরক্ষিত রাখা। আর এজন্য চাই ফোনে সঠিক অ্যান্টিভাইরাস। হাজার হাজার অ্যান্টিভাইরাস থাকলেও এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল-  ৩৬০ সিকিউরিটি (360 Security), এভিজি অ্যান্টিভাইরাস (AVG), ইএসইটি মোবাইল সিকিউরিটি, ক্যাসপারস্কাই ইত্যাদি।

ট্রুকলার

এটি একটি কলার আইডি শনাক্ত করার অ্যাপ। এই অ্যাপ অবাঞ্ছিত ও বিরক্তিকর ফোন আসাও ব্লক করতে পারে। অপরিচিত কোনও নম্বর থেকে ফোন এলে সেই নম্বর দেখে সেই নম্বরকে শনাক্ত করে আপনাকে ফোনকর্তার বিস্তারিত তথ্য দিতে পারে এই অ্যাপ। এই অ্যাপটি শুধুমাত্র ইন্টারনেটের মাধ্যমেই কানেক্ট করা যায়।

সোস্যাল মিডিয়া অ্যাপ


আপনার প্রিয় বন্ধু বা মনের মানুষটিকে চোখের সামনে রাখার জন্য কিংবা আপনার গোটা দুনিয়াকে হাতের মুঠোয় নিয়ে আসা এবং পরিবারে সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করার জন্য আপনার ফোনে সোস্যাল মিডিয়া অ্যাপ রাখা খুবই জরুরী। এজন্য হোয়াটঅ্যাপ, ফেসবুক, টুইটার, স্ন্যাপচ্যাট ইত্যাদি সোস্যাল মিডিয়া অ্যাপগুলি না থাকা মানে আপনার ফোনকে প্রতিবন্ধী করে রাখা।

মিউজিক অ্যাপ


গান সোনার জন্য আপনাকে ৮ জিবি বা ১৬ জিবি বা ৩২ জিবি মেমরি কার্ডের প্রয়োজন নেই কিংবা গান শোনার জম্য কম্পিউটার থেকে ডেটা কেবিলের সাহায্যে গান ফোনে ট্রান্সফার করার প্রয়োজন নেই। গানা, সাভন, উইঙ্ক মিউজিক, সাউন্ড ক্লাউড এগুলির মধ্যে যেকোনও একটি মিউজিক স্ট্রিমিং অ্যাপ ইনস্টল করে নিলেই যথেষ্ট।

পরিবহনের অ্যাপ


টেকনোলোজির স্মার্ট যুগে আপনাকে বাসের ভিড় আর ট্যাক্সির রিফুউজাল থেকে বাঁচতে স্মার্টফোনে ট্রান্সপোর্ট অ্যাপ থাকালে খুব সুবিধা হয়। আর এর জন্য ওলা ও উবার ইনস্টল করুন।

শপিং অ্যাপ


ঘড়ে বসে কেনাকাটার জন্য ই-কমার্স আপনার অনেকটা সময় বাঁচায় এবং আপনার কেনাকাটা অনেক সহজ ও পকেটসাধ্য করে। তাই ফোনে ফ্লিপকার্ট, অ্যামাজন, স্ন্যাপডিল, জ্যাবং, মিন্ত্রা, সোপক্লুজ অ্যাপগুলি ইনস্টল করে নিতে পারেন।

ফুড অ্যাপ


আপনার প্রিয় খাবারের জন্য কষ্ট করে আর দোকানে না ছুটে বাড়িতে বসে পছন্দ মতো খাবার খাওয়ার দিকে থেকে দেখতে গেলে ফুড অ্যাপের জুড়ি মেলা ভার। জোমাটো, সুইগি, ফুডপান্ডা ইনস্টল করে নিন ঝটপট।

মোবাইল ওয়ালেট


পেটিএম, অক্সিজেন, মোবিকুইক-এর মতো মোবাইল ওয়ালেট অ্যাপগুলি ইনস্টল করাটা স্মার্টফোনে খুব জরুরী। এই ধরনের মোবাইল ওয়ালেট দিয়ে কেনাকাটায় অনেক ছাড়া পাওয়া যায়। সব ক্ষেত্রে আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের তথ্য না দিলেও চলবে।

ফটো এডিটিং অ্যাপ


ফোনে তোলা ছবি আরও আকর্ষণীয় করতে একটু এডিটিংয়ের প্রয়োজন তো হয়ই। তাই পিক্সএলআর, ইনস্তাগ্রাম, অ্যাডোব লাইটরুম-এর মতো অ্যাপগুলি ফোনে ইনস্টল করুন।
গেম
গেম প্রেমিদের জন্য আছে হাজার হাজার গেম। তবে অবসর সময় কাটানোর জন্য কিংবা মনোরঞ্জনের জন্য গেম খেলার জন্য গুগল প্লে স্টোর থেকে আপনার পছন্দ মতো গেম ইন্সটল করে নিন।
 
0 comments

মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ডকুমেন্টে পাসওয়ার্ড প্রটেক্ট করবেন যেভাবে

অফিসিয়াল কাজের জন্য মাইক্রোসফট ওয়ার্ড (Microsoft Word ) এর জুরি নেই। তবে কোন কোন কাজের ক্ষেত্রে অফিসের কোন গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট প্রটেক্ট করতে হয়। আর এই পোষ্টে দেখানো হবে কিভাবে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ডকুমেন্টে পাসওয়ার্ড প্রটেক্ট করবেন ?  আপনি যে কোনো ওয়ার্ড  ডকুমেন্ট পাসওয়ার্ড প্রটেক্ট করতে পারবেন একদম সফ্টওয়্যার ছাড়াই। এতে আপনার ডকুমেন্ট বা ফাইলগুলো থাকবে নিরাপদে । এজন্য আপনাকে যা যা করতে হবে তা নিম্নে আলোচনা করা হল। [Slow কম্পিউটার নিমিষে সুপার ফাস্ট করে নিন সফটওয়্যার ছারা ১ মিনিটে ]
  • প্রথমে একটি MS Word ফাইল খুলতে হবে। তারপর এর মধ্যে কিছু লিখতে হবে।
 মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ডকুমেন্টে পাসওয়ার্ড প্রটেক্ট
  • এরপর একটি নতুন উইন্ডো দেখাবেন সেখান থেকে টুলস (Tools) অপশনে গিয়ে জেনারেল অপশনে (General options) ক্লিক করতে হবে।

মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ডকুমেন্টে পাসওয়ার্ড প্রটেক্ট

  • এরপর পাসওয়ার্ড টু মডিফাই (Password to modify) বক্সে পাসওয়ার্ড ক্লিক করতে হবে।
মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ডকুমেন্টে পাসওয়ার্ড প্রটেক্ট
  • OK তে ক্লিক করে, এমএস ওয়ার্ড ডকুমেন্ট বন্ধ করতে হবে। তারপর পাসওয়ার্ড দ্বারা পুনরায় এমএস ওয়ার্ড ফাইলটি খুলতে হবে।
 ব্যাস, এবার আপনার মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ফাইল থাকবে সম্পূর্ণ নিরাপদে। সমস্যা হলে কমেন্ট করুন। ধন্যবাদ।
0 comments